””         আরামবাগের কালিপুরে প্রাচীন পৌষ মেলা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত – Arambagh Times
Sat. Feb 27th, 2021

Arambagh Times

কাউকে ছাড়ে না

আরামবাগের কালিপুরে প্রাচীন পৌষ মেলা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত

1 min read

নিজস্ব সংবাদদাতা: আরামবাগ পৌরসভার কালিপুরে দ্বারকেশ্বর নদের পশ্চিম পাড়ে প্রায় ৫৫ বছর আগে পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে গঙ্গামেলার সূচনা করেন চিতু মল্লিক ওরফে সেখ সাজেদ আলি। সে সময় এই দ্বারকেশ্বর নদ ছিল এলাকার দুঃখের নদী। প্রতি বছর ভয়ঙ্কর বন্যায় দুকুল ভাষাতো এবং সাধারণ মানুষজনের ব্যাপক ক্ষতি হতো। বন্যার হাত থেকে রেহাই পেতে নদী তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দা মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ চিতু মল্লিক ওরফে সেখ সাজেদ আলি সিদ্ধান্ত নেন মা গঙ্গা দেবীর মুর্তি এনে পূজা করা, সেই সঙ্গে পুজাকে সামনে রেখে মেলা ও নানান মনোরঞ্জনকারি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা। প্রথমেই তাঁর পাশে এসে দাঁড়ান হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ সাধন কালিন্দী। দুজনেই অতি সাধারণ নিম্ন বিত্তের মানুষ, এলাকার মঙ্গলার্থে তাঁদের এই উদ্যোগকে সম্মান জানিয়ে একে একে এগিয়ে আসেন এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জগৎমোহন কুন্ডু, নীলু বাবু সহ আরও অনেকে। পরে এই মেলার নামানুসারে মেলা সংলগ্ন এলাকার নাম হয়ে যায় গঙ্গাতলা পাড়া আর মেলা মহীরুহ হয়ে ওঠে। নানান প্রান্ত থেকে কাতারে কাতারে মানুষ এই পৌষ মেলায় তুষলা ভাষিয়ে পুন্য স্নান করতে আসতেন, তিন দিনের মেলায় হরিনাম সংকীর্তন, তীরন্দাজী, কাবাডি প্রতিযোগিতা, বিচিত্রানুষ্ঠান ছিল অত্যন্ত আকর্ষনীয়। অসংখ্য দোকান পসরা সাজিয়ে বেচাকেনা চলতো। সবার মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে এই মেলা চিতু মল্লিকের মেলা। তিনি প্রয়াত হলে তাঁর সন্তান পেয়ার আলি ও মানিক আলি মেলা পরিচালনায় এগিয়ে আসেন। প্রয়াত হন সাধন কালিন্দী, জগৎমোহন কুন্ডু, নীলু বাবু সহ সেসময়ে এগিয়ে আসা মানুষজন। পেয়ার আলি ও মানিক আলির পাশে এগিয়ে আসেন এলাকার দিন আনা দিন খাওয় নিম্ন বিত্তের কিছু যুবক। চাঁদার উপর ভরসা করেই চলছিলো মেলা। কিন্তু আরামবাগ পৌরসভার উদ্যোগে একই সময়ে আরামবাগ উৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ায় ধীরে ধীরে এই মেলার জৌলুস হারিয়ে যেতে থাকে। তৃণমূলের আমলে আরামবাগ পৌরসভার এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রদীপ সিংহরায় কিছুটা আর্থিক সহায়তা প্রদান করলেও গত বছর থেকে কোনো এক অদৃশ্য কারণে সেটুকুও দেওয়া বন্ধ করে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ায় মেলা যখন প্রায় বন্ধ হতে বসেছিল সে সময় এগিয়ে আসেন বিজেপির আরামবাগ সাংগঠনিক জেলা সভাপতি বিমান ঘোষ। তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এমন উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত আমাদের বাঁচিয়ে রাখা কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। এগিয়ে আসেন এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী অচিন্ত্য কুমার কুন্ডু। বিমান ঘোষ জানান, আগামী দিনে এই মেলা আবার পুরোনো ঐতিহ্যে যাতে ফিরে আসে তার যাবতীয় উদ্যোগ তাঁরা নেবেন। অচিন্ত্য কুমার কুন্ডু ক্ষোভের সাথে বলেন, এই মেলা রাজনৈতিক দলমতের উর্ধ্বে উঠে সকলের মিলন মেলা। চিতু মল্লিক, সাধন কালিন্দী সম্মিলিত ভাবে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তাকে পুনরূদ্ধার করতে এলাকার সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright © All rights reserved. | Powered by KTSL TECHNOLOGY SERVICES PVT LTD(7908881231).