””         রাজনীতির রঙ্গমঞ্চে দলবদলের নাটকে খল চরিত্রের ফ্লপ শো – Arambagh Times
Mon. Apr 12th, 2021

Arambagh Times

কাউকে ছাড়ে না

রাজনীতির রঙ্গমঞ্চে দলবদলের নাটকে খল চরিত্রের ফ্লপ শো

1 min read

চিন্ময় কুন্ডু: দলবদল এর রাজনীতি চলে আসছে অতীতকাল থেকেই, বর্তমানেও সেই রাজনীতি অব্যাহত। এ ওর দল ভাঙিয়ে নেতাদের টানছে তো ও এর দল ভাঙিয়ে নেতাদের টানছে। নির্বাচনের প্রাক্কালে আর ফল ঘোষণার পর আবার কোনো কোনো নির্বাচিত প্রতিনিধি দরকষাকষিতে ব্যস্ত থাকেন কোন্ কোন্ শর্তে নিজেদের বিক্রি করবেন– এমনও হয়ে আসছে। জনগনের ভালোবাসার, নির্ভরতার, বিশ্বাসের ভোটে জয়ী হয়ে নিজের স্বার্থে অবলীলায় দলবদল করা এই দেশে জলভাত। দলবদলের রাজনীতিটা যেন একটা ট্র্যাডিশন হয়ে দাঁড়িয়েছে।অতি সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের লড়াকু নেতা শুভেন্দু অধিকারী সহ আরো অনেক তৃণমূল নেতা। এছাড়াও যোগদান করেছেন বিষ্ণুপুরের পৌরসভার চেয়ারম্যান তৃণমূল কংগ্রেস নেতা শ্যাম মুখার্জী। যদিও এই শ্যাম মুখার্জীকে বিজেপির দলে মেনে নিতে পারছেন না বিষ্ণুপুরের বহু বিজেপি সমর্থক। তাকে দল থেকে বিতাড়িত করার জন্য বিক্ষোভ দেখান তারা। কিন্তু তাদের কথার প্রাধান্য না দেওয়ায় নতুন করে বিজেপিতে মাথা চাড়া দিয়েছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। আবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেছেন বিষ্ণুপুরের লড়াকু বিজেপি নেত্রী তথা সাংসদ সৌমিত্র খাঁর পত্নী সুজাতা মন্ডল খাঁ। স্বামী সৌমিত্র খাঁ বিজেপির সংসদ ও পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি যুব সভাপতি। কিন্তু তাঁর স্ত্রী হঠাৎ গিয়ে যোগদান করলেন তৃণমূল কংগ্রেসে। কি কারনে সুজাতার এই পরিবর্তন তা এখনও পরিষ্কার নয় বঙ্গবাসীর কাছে। তবে তিনি প্রেস কনফারেন্স এর মধ্য দিয়ে বলেছেন বর্তমানে বিজেপি অন্য দল থেকে আসা নেতাদের বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। যারা এতদিন গায়ের রক্ত জল করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কষ্ট করলেন তারা প্রাধান্য পাচ্ছেন না। শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে তিনি বলেন “উনি একটি ধান্দাবাজ লোক” ধান্দা ছাড়া চলে না এবং ওনাকে আমি নেতা বলেও মানিনা। এছাড়াও সৌমিত্রর সাথে তার সাংসারিক গন্ডগোল চলছিল বেশ কয়েক মাস ধরেই, দেখা দিয়েছিল মতপার্থক্য। তাই তার এই পরিবর্তন। তৃণমূল কংগ্রেসের গিয়ে তিনি মমতা ব্যানার্জিকে “প্রিয় নেত্রী” ও অভিষেক ব্যানার্জি কে “প্রিয় দাদা” বলে সম্বোধন করেন।
এখন প্রশ্ন থেকেই যায় হঠাৎ কেন সুজাতা খাঁ বিজেপি ত্যাগ করে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন? যে নেতা নেত্রীদের তিনি কড়া ভাষায় এতদিন দূষতেন হঠাৎ কেন আজ তাদের “প্রিয় নেত্রী ও প্রিয় দাদা” বলে সম্বোধন করলেন? তাহলে তিনিও কি সেই ক্ষমতার স্বাদ নিতে পদের লোভেই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলেন? যাদেরকে তিনি “চোর” “ডাকাত”এর সঙ্গে প্রতি মুহূর্তে তুলনা করতেন হঠাৎ কেন আজ তাঁর কথা মতোই সেই ” চোর”, “ডাকাত” এর সাথেই হাত মেলালেন? এর পরে পরেই সৌমিত্র খাঁর কান্নাকাটি শুরু করা, ডিভোর্স পেপার পাঠানোকে অনেকেই স্রেফ নাটক বাজি বলে মনে করছেন। বলছেন, গটাপগেম চলছে। এরা ফ্লপ খল নায়ক, হাসির ও বিরক্তির খোরাক। তবে অভিসন্ধি যাই থাক, বিষ্ণুপুরে সৌমিত্র খাঁ র গ্রহনযোগ্যতা মে তলানিতে নামবে সন্দেহ নেই। প্রশ্ন উঠেছে, রাজনীতিটা আজ কোথাও কি শুধুই ব্যক্তিস্বার্থে পরিণত হয়েছে? জনতাজনার্দন নয়, সমাজ সেবা তো নয়ই, পদের লোভেই কি এতো দলাদলি? একই ব্যাক্তি একেরপর এক দল বদল করে চলেছে। সকালে এক দলে তো সন্ধ্যায় এক দলে,‌ সকালে যে দলকে প্রতারক, ঠগবাজ, দেশদ্রোহী এমন কত কি বলে গেলেন, ঘন্টার ব্যবধানে সেই দলটি নীতিনিষ্ঠ, সততার প্রতিক!! কোনো উন্নত রাষ্ট্রে এই ঘৃন্য রাজনীতি দেখা যায় না।
সবশেষে বলে যায় হয়তো নচিকেতা চক্রবর্তী এই দিনটার কথা ভেবেই এই গানটা গেয়েছিলেন “আজকে যিনি দক্ষিণেতে কালকে তিনি বামের, আজকে যিনি তেরঙ্গা তে কাল ভক্ত রামের……

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright © All rights reserved. | Powered by KTSL TECHNOLOGY SERVICES PVT LTD(7908881231).